ভালোবাসার সুখানুভূতি

তুমি যেদিন নীল শাড়ী পরে খোলা চুলে
তোমার সামনে এসে দাঁড়াতে বলেছিলে
দু’চোখ ভরে একটু দেখার মুগ্ধতা চেয়েছিলে
শুধু ভালোবেসে একটা চুমু চেয়েছিলে!
লজ্জায় লাল হয়েছিলাম অবুঝ আমি
অন্যরকমের এক অজানা শিহরনে
সে এক অন্যরকমের ভালোলাগার লজ্জা
পালিয়ে থেকেছি তোমার চোখের আড়ালে
লুপ্ত অনুভূতিগুলো তোমায় বুঝাতে পারিনি বলে!

খুব ইচ্ছে করছে —
আজ নীল শাড়ী নীল টিপে সাজি
রঙিন কাঁচের চুড়ির রিনিঝিনি ছন্দে
তোমার হৃদয় নেচে উঠুক আবার!
চোখে টানা কাজল মেখে তোমার সামনে এসে দাঁড়াবো
যেমনটা তুমি ভালোবাসো!
তোমার প্রেমের দেবী হয়ে!
যা কাব্যের ছন্দ- ভাষা আর
সঙ্গীতের সুর জাগায় তোমার হৃদয়ে!

বলেছিলে আমার অভিমানী অবুঝ চোখ জোড়া
বড় বেশি মায়ায় ভরা, ওরা কত না বলা কথা বলে!
ঠোঁটের কোণের মৃদু আহ্লাদি হাসিতে
তোমার বুকে এক স্বর্গ সুখ নেমে আসে!

আজ আমি নগ্ন পায়ে চুপিচুপি আসবো
তোমার সেই নীল স্বপ্ন পরী হয়ে!
যখন চন্দ্রিমার চিকচিক আলোয়
সমুদ্র জলেরা হাসবে আর ডাকবে
এসো প্রিয়া এসো,
সমুদ্র জলে ধোয়া শীতল বালির বিছানায়
আমি চুপচাপ এসে তোমার বুকে লুটিয়ে পড়বো।

আপ্লুত তুমি চিবুক ধরে লজ্জা ভাঙ্গাবে
অনেক, অনেক-অনেক মিষ্টি আদরে
কপালের টিপ সরিয়ে বলবে-
ও টিপ বড় বেশি ভার তোমার কপালে
ঝরে যাবে যখন তখন!
আমার প্রেমের আদর হোক আজ থেকে
তোমার কপালের অঝরা টিপ!

একটা একটা করে চুড়ি খুলে বলবে-
এ চুড়ি রাতের নিরবতার আমেজ ভাঙ্গে
তোমার নিশ্বাস ছাড়া আর কোন শব্দ চাইনা
ও যে তোমার চঞ্চল হাত দুটো বেঁধে রাখে
ভেঙ্গে আঁচড় লাগে যদি তোমার কোমল হাতে!
আমার ভালোবাসার অমৃত স্পর্শ হোক
আজ থেকে তোমার হাতের কাঁকন,
যা থাকবে তোমার সাথেই আজীবন
হয়ে এক অদৃশ্য মায়াবী মিষ্টি বাঁধন!

কাঁধ থেকে এলো চুল আলতো করে সরিয়ে
কানের কাছে ফিসফিস করে বলবে-
এসব অলংকার তোমার যোগ্য নয় প্রিয় মানবী!
এ গলার হার আমার ভালোবাসার জমিনটা ঢেকে রাখে
তোমার বুকের লুকানো স্পন্দন শুনতে চাই
প্রিয়া, আমার অফুরন্ত প্রেমাদর গুলি হোক
আজ থেকে তোমার গলায় সুখের অলংকার!

আদরে আদরে ঘুমন্ত রাত জেগে রবে
শরীরের প্রতিটি অনুরণনে বয়ে যাবে
অন্য রকমের শিহরনের সুখানুভূতি
বিশ্বস্ত আস্থায় মুছে যাবে সব ক্লান্তি!

ভালোবাসার অচেনা মিষ্টি আবেশে
আদুরে আহ্লাদি স্বপ্নে বিভোর আমি
ঘুমিয়ে পড়বো তোমার উম্মুক্ত বুকে
সব অতৃপ্তি মুছে অন্যরকম এক সুখে!

-ফারহানা হুদা নিপা